জ্যোতি প্রকাশ স্কলারশিপে আবেদন করলেই মিলবে ২৪,০০০ টাকার অনুদান।

BUDDY4STUDY ফাউন্ডেশনের তরফে ভারতে বসবাসকারী বিশেষভাবে সক্ষম, ট্রান্সজেন্ডার, অনাথ, সিঙ্গেল প্যারেন্ট চিলড্রেন, ফার্স্ট জেনারেশন লার্নার স্টুডেন্টস এবং স্পোর্টসপার্সনদের জন্য এক বিশেষ ধরনের স্কলারশিপ কার্যকর করা হয়েছে। এই সমস্ত শিক্ষার্থীদের শিক্ষা এবং খেলার ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় খরচ বহনের ক্ষেত্রে আর্থিক সহায়তা করাই BUDDY4STUDY এই স্কলারশিপের মূল উদ্দেশ্য। BUDDY4STUDY ফাউন্ডেশনের তরফে কার্যকর এই স্কলারশিপটি জ্যোতি প্রকাশ স্কলারশিপ প্রোগ্রাম নামে পরিচিত।

ছাত্র-ছাত্রীদের আবেদনের খাতিরে এই স্কলারশিপটিকে মূলত ৫ টি ভাগে ভাগ করা হয়েছে, আর এই বিভাগগুলি হল:

১. জ্যোতি প্রকাশ স্কলারশিপ প্রোগ্রাম ফর ট্রান্সজেন্ডার স্টুডেন্টস:-

যেসকল ট্রান্সজেন্ডার ছাত্র-ছাত্রীরা বর্তমানে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীতে অথবা স্নাতক স্তরে বা স্নাতকোত্তর স্তরে পড়াশোনা করছেন এবং বিগত পরীক্ষায় ন্যূনতম ৫৫ শতাংশ নম্বর পেয়েছেন তারাই কেবলমাত্র এই স্কলারশিপের আওতায় আবেদন জানাতে পারবেন। এক্ষেত্রে আবেদনকারীর পরিবারের বাৎসরিক আয় ৮ লক্ষ টাকা বা তার তুলনায় কম হতে হবে, তবেই তিনি এই স্কলারশিপের আওতায় আবেদনের ক্ষেত্রে যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন। তবে BUDDY4STUDY ফাউন্ডেশনে কর্মরত কর্মীদের সন্তানরা এই স্কলারশিপের অধীনে আবেদন জানাতে পারবেন না।

২. জ্যোতি প্রকাশ স্কলারশিপ প্রোগ্রাম ফর স্টুডেন্টস উইথ ডিসেবিলিটিস:-

যেসমস্ত ছাত্র-ছাত্রীরা ৪০% বা তার বেশি শারীরিক প্রতিবন্ধী তারাই কেবলমাত্র এই স্কলারশিপের অধীনে আবেদন জানাতে পারবেন। নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীতে পাঠরত কিংবা স্নাতক স্তরে পাঠরত অথবা স্নাতকোত্তর স্তরে পাঠরত ছাত্র-ছাত্রীরা এই স্কলারশিপের অধীনে আবেদন জানাতে পারবেন। বিগত পরীক্ষায় নূন্যতম ৫৫% নম্বর পেলে তবেই শিক্ষার্থীরা এই স্কলারশিপের অধীনে আবেদন জানাতে পারবেন। এক্ষেত্রে আবেদনকারীর পরিবারের বার্ষিক আয় ৬ লক্ষ টাকা তার তুলনায় কম হওয়া আবশ্যক। BUDDY4STUDY ফাউন্ডেশনের কর্মচারীদের সন্তানরা এই স্কলারশিপের অধীনে আবেদন জানাতে পারবেন না।

৩. জ্যোতি প্রকাশ স্কলারশিপ প্রোগ্রাম ফর অরফ্যান অ্যান্ড সিঙ্গেল প্যারেন্ট চিলড্রেন:-

যে সকল ছাত্র-ছাত্রীরা কোনো কারণে তাদের পিতা অথবা মাতার মধ্যে যেকোনো একজনকে হারিয়েছেন কিংবা উভয়কেই হারিয়েছেন তারা এই স্কলারশিপের অধীনে নিজেদের নাম নথিভুক্ত করতে পারবেন। এক্ষেত্রে শুধুমাত্র নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীতে পাঠরত ছাত্র-ছাত্রী, স্নাতক ছাত্র-ছাত্রী এবং স্নাতকোত্তর ছাত্র-ছাত্রী আবেদন জানাতে পারবেন। যে সমস্ত ছাত্র-ছাত্রীরা বিগত পরীক্ষায় ৫৫ শতাংশ নম্বর পেয়েছেন তারাই কেবলমাত্র এই স্কলারশিপের অধীনে আবেদনের যোগ্য বলে বিবেচিত হবেন। এক্ষেত্রে যেসমস্ত ছাত্র-ছাত্রীর পিতা কিংবা মাতার মধ্যে যেকোনো একজন জীবিত তাদের পরিবারের বাৎসরিক আয় ৬ লক্ষ টাকা হলে তবে এই স্কলারশিপের অধীনে আবেদন জানানো যাবে। অন্যদিকে অনাথ ছাত্র-ছাত্রীদের ক্ষেত্রে পরিবারের বাৎসরিক আয় ৩ লক্ষ টাকা হলে তবে এই স্কলারশিপের অধীনে আবেদন জানানো যাবে।

আরও পড়ুন:- নিজ গৃহ নিজ ভূমি প্রকল্পে মিলবে জমি, বাড়ি ও কর্মসংস্থান। বিস্তারিত জানুন প্রতিবেদনে।

৪. জ্যোতি প্রকাশ স্কলারশিপ প্রোগ্রাম ফর স্পোর্টস পারসনস:-

যে সমস্ত ছাত্র-ছাত্রীরা বিগত ৩ বছরে রাজ্য স্তরে, জাতীয় স্তরে অথবা আন্তর্জাতিক স্তরের খেলায় অংশগ্রহণ করেছেন কিংবা পুরস্কৃত হয়েছেন তারাই কেবলমাত্র এই স্কলারশিপের অধীনে আবেদন জানাতে পারবেন। এই স্কলারশিপের অধীনে আবেদনের ক্ষেত্রে আবেদনকারীর বয়স ১৪ বছর থেকে শুরু করে ২৫ বছরের মধ্যে হওয়া আবশ্যক, এক্ষেত্রে ছাত্র-ছাত্রীদের বয়স ৩১ শে জুলাই ২০২৩ তারিখ অনুসারে গণনা করা হবে। ছাত্র-ছাত্রীদের পরিবারের আয় ৬ লক্ষ টাকা বা তার তুলনায় কম হলে তবেই এই স্কলারশিপের অধীনে আবেদন জানানো যাবে। এক্ষেত্রে যে যে খেলার সঙ্গে যুক্ত ছাত্র-ছাত্রীরা আবেদন জানাতে পারবেন তা হল: অ্যাথলেটিক্স, ব্যাডমিন্টন, দাবা, হকি, ক্রিকেট, টেবিল টেনিস, ফুটবল, ভলিবল, বক্সিং, তীরন্দাজি, কবাডি ইত্যাদি।

৫. জ্যোতি প্রকাশ স্কলারশিপ প্রোগ্রাম ফর ফার্স্ট জেনারেশন লার্নার্স:-

ভারতে বসবাসকারী যেসকল ছাত্র-ছাত্রীদের পিতা, মাতা কেউই স্নাতক নন এবং বর্তমানে দিন মজুর, ড্রাইভার, কৃষক, ইলেকট্রিশিয়ান, সিকিউরিটি গার্ড রূপে জীবিকা নির্বাহ করছেন তারাই কেবলমাত্র এই স্কলারশিপের অধীনে নিজেদের নাম নথিভুক্ত করতে পারবেন। এক্ষেত্রে নবম থেকে দ্বাদশ শ্রেণীতে পাঠরত ছাত্র-ছাত্রী, স্নাতক স্তরে পাঠরত ছাত্র-ছাত্রী, স্নাতকোত্তর স্তরে পাঠরত ছাত্র-ছাত্রী আবেদন জানাতে পারবেন। তবে স্কলারশিপের আওতায় আবেদন জানানোর ক্ষেত্রে ছাত্র-ছাত্রীদের বিগত পরীক্ষায় নূন্যতম ৫৫ শতাংশ নম্বর পেতে হবে। অন্যদিকে BUDDY4STUDY তরফে আরো জানানো হয়েছে যে সমস্ত ছাত্র-ছাত্রীদের পরিবারের বাৎসরিক আয় ৩ লক্ষ টাকা বা তার তুলনায় কম তারাই কেবলমাত্র এই স্কলারশিপের অধীনে নিজেদের নাম নথিভুক্ত করতে পারবেন।

অনুদান:-

• নবম শ্রেণি থেকে দ্বাদশ শ্রেণিতে পাঠরত ছাত্র-ছাত্রীরা এই স্কলারশিপের অধীনে ১৫,০০০ টাকার অনুদান পেয়ে থাকেন।
• স্নাতক স্তরে পাঠরত ছাত্র-ছাত্রীরা এই স্কলারশিপের আওতায় ১৮০০০ টাকার অনুদান পেয়ে থাকেন।
• স্নাতকোত্তর স্তরে পাঠরত ছাত্র-ছাত্রীরা এই স্কলারশিপ থেকে ২৪,০০০ টাকার অনুদান পেয়ে থাকেন।

আবেদনের প্রক্রিয়া:-

এই স্কলারশিপের আওতায় নিজের নাম নথিভুক্ত করার ক্ষেত্রে আপনাকে প্রথমে Buddy4Study -এর অফিসিয়াল ওয়েবসাইট https://www.buddy4study.com/page/jyoti-prakash-scholarship-program -এ যেতে হবে। এক্ষেত্রে আপনার সামনে যে হোম পেজটি আসবে তাতে ক্যাটেগরি অনুযায়ী স্কলারশিপটিকে নানাভাগে বিভক্ত করা হয়েছে। এর মধ্যে থেকে আপনার যোগ্যতা অনুসারে ক্যাটাগরি বেছে নিয়ে Apply Now অপশনে ক্লিক করুন। উপরোক্ত অপশনে ক্লিক করলে আপনার সামনে যে পেজটি আসবে তাতে আপনার ইমেইল অ্যাড্রেস কিংবা মোবাইল নম্বরের মাধ্যমে রেজিস্ট্রেশনের প্রক্রিয়াটি সম্পূর্ণ করতে হবে। পরবর্তীতে আপনার সামনে যে পেজটি তাতে থাকা Start Application অপশনে ক্লিক করুন এবং স্কলারশিপের অধীনে আবেদনের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় আবেদন পত্রটি সঠিকভাবে পূরণ করুন। আবেদন পত্রটি পূরণ করা হলে ফর্মে উল্লেখিত সমস্ত নথিগুলি সঠিকভাবে আপলোড করুন। এরপর টার্মস অ্যান্ড কন্ডিশন গুলিকে Accept করে Preview অপশনে ক্লিক করুন। প্রিভিউতে আপনার সমস্ত তথ্য যদি ঠিক থাকে তবে Submit অপশনে ক্লিক করে আবেদন পত্রটি সাবমিট করুন।

apply-for-jyoti-prakash-scholarship

আবেদনের ক্ষেত্রে প্রয়োজনীয় নথি:-

১. বিগত পরীক্ষার মার্কশীট।
২. আধার কার্ড।
৩. পরিবারের বাৎসরিক আয়ের সার্টিফিকেট।
৪. ছাত্র-ছাত্রী বর্তমানে যে কোর্সে পাঠরত তাতে ভর্তির রশিদ।
৫. পাসপোর্ট সাইজের ফটোগ্রাফ।
৬. শিক্ষার্থী বর্তমানে যে করতে পাঠরত তাতে ভর্তির প্রমাণপত্র।
৭. ট্রান্সজেন্ডার সার্টিফিকেট।
৮. প্রতিবন্ধী সার্টিফিকেট।
৯. ফার্স্ট জেনারেশন ছাত্র-ছাত্রীদের ক্ষেত্রে আবেদনকারী ছাত্র বা ছাত্রীই যে পরিবার থেকে প্রথম উচ্চশিক্ষা গ্রহণ করছেন সেই বিষয়ক সেল্ফ ডিক্লারেশন ফর্ম।
১০. পিতা অথবা মাতা কিংবা উভয়েরই ডেথ সার্টিফিকেট।
১১. শিক্ষার্থী সর্বশেষ যে খেলায় অংশগ্রহণ করেছে কিংবা পুরস্কৃত হয়েছে তার সার্টিফিকেট।

Leave a Comment